sasthoseba.com

First Health News site in Bangladesh

বলিউডের অজানা সেরা কয়কটি যৌন কেলেঙ্কারি!

বিতর্ক আর কবেই বা বলিউডের বা পিছু ছেড়েছে? কত রকমের যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে বলিউডের নামজাদা তারকাদের নিয়ে! এখানে রইল বলিউড জগতের ‘কুখ্যাত’ কিছু যৌন বিতর্কের কথা—

* অস্মিত প্যাটেল ও রিয়া সেন এমএমএস কাণ্ড: বলিউডের অন্যতম বহুলচর্চিত যৌন কেলেঙ্কারি। এই কাণ্ডের মূলে ছিল একটি মিনিট দেড়েকের এমএমএস ভিডিও। ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছিল বিছানায় শায়িত নগ্ন রিয়াকে, সঙ্গে রয়েছেন অভিনেতা অস্মিত প্যাটেল। মোবাইলে মোবাইলে ছড়িয়ে পড়ে এই ভিডিও। তুমুল শোরগোল পড়ে যায় বলিউডে। পরে জানা যায়, এই ভিডিও তোলা এবং তা ছড়িয়ে পড়ার নেপথ্যে রয়েছে রিয়ার তৎকালীন প্রেমিক অস্মিত। তিনিই তাঁর মোবাইলে ভিডিওটি শ্যুট করেন। পরে রিয়ার সঙ্গে ব্রেক আপ হয়ে যাওয়ার পরে তিনিই ভিডিওটি ছড়িয়ে দেন। রিয়া অবশ্য পুরো ভিডিওটাকেই জাল বলে দাবি করেছিলেন।

* বিপাশা বসু ও অমর সিংহের ফোনালাপ: ২০০৬ সালে সংবাদমাধ্যমে অভিনেত্রী বিপাশা বসু ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব অমর সিংহের মধ্যে টেলিফোনে হওয়া একটি কথোকথন সংবাদমাধ্যমে ফাঁস হয়ে যায়। সেই ফোনালাপ, অনেকের মতেই ছিল যথেষ্ট যৌনগন্ধী। বিপাশা দাবি করেন, সেই অডিও টেপের মহিলা-কন্ঠটি আদৌ তাঁর নয়। তিনি এর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেবার হুমকিও দেন। অমর সিংহ অবশ্য মেনে নেন, গলার আওয়াজটি তাঁরই, কিন্তু বিপাশার সঙ্গে তিনি নাকি কখনও ফোনে কথাই বলেননি।

* শক্তি কপুর স্টিং অপারেশন: একটি স্টিং অপারেশনের অংশ হিসেবে এক মহিলা সাংবাদিক উঠতি অভিনেত্রী সেজে অভিনেতা শক্তি কপুরের কাছে যান ফিল্মে কাজ পাওয়ার আশা নিয়ে। শারীরিক ঘনিষ্ঠতার বিনিময়ে সেই মহিলাকে ফিল্মে কাজ পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন শক্তি। এই স্টিং অপারেশন নিয়ে যথেষ্ট জলঘোলা হয়।

* পায়েল রোহাতগি-দিবাকর বন্দ্যোপাধ্যায়: পরিচালক দিবাকরের কাছে পায়েল গিয়েছিলেন দিবাকরের ‘সাংহাই’ ফিল্মে একটি রোল পাওয়ার প্রত্যাশা নিয়ে। পরে পায়েল অভিযোগ করেন যে, দিবাকর নাকি একদিন মাঝরাতে তাঁর বাড়িতে এসে বলেন, তাঁর ফিল্মে কাজ পেতে গেলে তাঁর সামনে দাঁড়িয়ে পোশাক-আশাক খুলতে হবে পায়েলকে। কোর্টে অবশ্য এই অভিযোগ প্রমাণ করতে পারেননি পায়েল।

* শাইনি আহুজা: ‘গ্যাঙগস্টার’ ফিল্ম খ্যাত শাইনির বিরুদ্ধে সারাসরি ধর্ষণের অভিযোগ তোলেন তাঁর বাড়ির পরিচারিকা। প্রাথমিকভাবে শাইনি এই অভিযোগ অস্বীকার করলেও পরে সেই পরিচারিকার ডাক্তারি পরীক্ষা থেকে জানা যায়, শাইনি সত্যিই ধর্ষণ করেছিলেন মেয়েটিকে। শাইনিও তখন বাধ্য হন অভিযোগটি স্বীকার করে নিতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sasthoseba.com © 2014 Sasthoseba